জাতীয়

বৃষ্টিতে ঢাকায় দূষণ কমে বায়ুমানের উন্নতি

ডেস্ক রিপোর্ট

২১ মার্চ ২০২৩ , ১:০৭:২৭ প্রিন্ট সংস্করণ

 

মোঃ আঃ রহিম জয় সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টারঃ

কয়েক মাস ধরেই বায়ু দূষণে বিশ্বের শীর্ষ শহরগুলোর তালিকায় ঢাকার অবস্থান ছিল উপরে। তবে রাজধানীর বায়ুদূষণ এখন অনেকটাই কমে এসেছে। রবিবারের (১৯ মার্চ) বৃষ্টির কল্যাণে ঢাকার বায়ুর মানের উলেস্নখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে। তাই সোমবার (২০ মার্চ) স্বস্তিতে শ্বাস নিতে পেরেছে নগরবাসী।

প্রতিদিনের বাতাসের মান নিয়ে তৈরি করা একিউআই সূচক একটি নির্দিষ্ট শহরের বাতাস কতটুকু নির্মল বা দূষিত সে সম্পর্কে মানুষকে তথ্য দেয় এবং তাদের জন্য কোনো ধরনের স্বাস্থ্য ঝুঁকি তৈরি হতে পারে তা জানায়।

একিউআই সূচকে ৫০ এর নিচে স্কোর থাকার অর্থ হল বাতাসের মান ভালো। স্কোর ৫১ থেকে ১০০ হলে বাতাসের মান গ্রহণযোগ্য বলে ধরে নেওয়া হয়। স্কোর ১০১ থেকে ১৫০ থাকলে সেই বাতাসকে ‘স্পর্শকাতরদের জন্য অস্বাস্থ্যকর’ বিবেচনা করা হয়। আর স্কোর ১৫১ থেকে ২০০ থাকলে তা বিবেচনা করা হয় ‘সবার জন্য অস্বাস্থ্যকর’ হিসেবে। বায়ুর মান ২০১ থেকে ৩০০ পিএম হলে সেটাকে বিবেচনা করা হয় ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ হিসেবে।
সুইজারল্যান্ডের বায়ুদূষণ পর্যবেক্ষক সংস্থা একিউএয়ারের তথ্য বলছে, ফেব্রুয়ারি মাসেও অস্বাস্থ্যকর অবস্থা থেকে নামেনি ঢাকার বায়ু। বরং বেশ কয়েকদিনই ঢাকার বায়ুমান ছিল চরম অস্বাস্থ্যকর পর্যায়ে। যার ধারাবাহিকতা চলেছে মার্চেও।

পরিবেশ অধিদফতর ও বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে, ঢাকার বায়ুদূষণের তিনটি প্রধান উৎস হলো: ইটভাটা, যানবাহনের ধোঁয়া ও নির্মাণ সাইটের ধুলা। ঢাকা দীর্ঘদিন ধরেই দূষিত বাতাস নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে। গ্রীষ্মকালে শহরটিতে বায়ুদূষণ শীর্ষে থাকলেও বর্ষায় অবস্থার উন্নতি

শেয়ার করুন:

আরও খবর

Sponsered content

জেনারেটরের শর্ট সার্কিটে পুড়ল ৮ দোকান সাইফুল ইসলাম নোয়াখালী থেকে নোয়াখালীর চাটখিলে আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে ৮টি দোকান। শনিবার (৮ জুন) দুপুর সোয়া ১টার দিকে উপজেলার সাহাপুর বাজারে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় ২৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা দাবি করেছেন। তবে ফায়ার সার্ভিস বলছে ক্ষতির পরিমাণ তদন্ত শেষে বলা যাবে। ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দুপুর সোয়া ১টার দিকে উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের সাহাপুর বাজারের জলিলের জুতা দোকান ও জোটন বাবুর জুয়েলার্স দোকানের পিছন থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যেই আগুন আশপাশের দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা এসে আগুন নেভানোর কাজে যুক্ত হন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মিরা সেখানে এসে এক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। ততক্ষণে তিনটি মদি, ১টি জুলেয়ার্স, ১টি জুতা দোকানসহ অন্তত আটটি দোকান পুড়ে গেছে। চাটখিল ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের লিডার আবুল কালাম জানান, ফায়ার সার্ভিসের একটি দল গিয়ে এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এর আগে ৮টি দোকান সম্পূর্ণ ভস্মিভূত হয়। অগ্নিকান্ডের সময় বাজারে বিদ্যুৎ ছিলনা। তখন বৈদ্যুতিক জেনারেটর চালু ছিল। প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে জেনারেটরের শর্ট সার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়েছে। তবে এ অগ্নিকাণ্ডে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ তদন্ত শেষে বলা যাবে।

স্ত্রীর মর্যাদা না পেয়ে বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছে ভূক্তভোগী নারী

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পদ্মার চর হতে ৪০০ গ্রাম হেরোইনসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

রাঙ্গাবালীতে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে প্রেস ব্রিফিং

নেত্রকোনায় প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত গ্রেফতার

রাজবাড়ীতে বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ১০ জন আহত