দেশজুড়ে

মানিকগঞ্জে সৃজন ওপেন রোভার স্কাউট গ্রুপের ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা উন্নয়ন ও ডে ক্যাম্প উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট

১৮ মার্চ ২০২৩ , ৫:২৯:১৮ প্রিন্ট সংস্করণ

পার্থ কর্ম কার (মানিকগঞ্জ)

মানিকগঞ্জে সৃজন ওপেন রোভার স্কাউট গ্রুপের ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা উন্নয়ন ও ডে ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ সকাল ১০.০০ ঘটিকা সময় বেউথা কুশেরচর জহুরা ইসমাইল টেকনিক্যাল এন্ড বি.এম কলেজে ক্যাম্পের উদ্বোধন করা হয়। এই সময় সরকার মোঃ মাছউদুর রহমান (সভাপতি মানিকগঞ্জ সৃজন ওপেন রোভার স্কাউট গ্রুপ) এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযুদ্ধা মফিজুল ইসলাম খান কামাল (সাবেক সংসদ সদস্য ও প্রাক্তন অধ্যক্ষ সরকারি মহিলা কলেজ মানিকগঞ্জ) এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ আইয়ুব খান (সম্পাদক বাংলাদেশ স্কাউটস মানিকগঞ্জ জেলা রোভার) বাকিদের মাঝে আরও উপস্থিত ছিলেন সামিউল হক সাকিব গেমস (সিনিয়র রোভার মেট প্রতিনিধি, বাংলাদেশ স্কাউট মানিকগঞ্জ জেলা রোভার ) এবং বৃষ্টি চক্রবর্তী (সিনিয়র রোভার মেট প্রতিনিধি, বাংলাদেশ স্কাউট মানিকগঞ্জ জেলা রোভার) সর্বশেষ মানিকগঞ্জ জেলার সকল রোভার স্কাউট গ্রুপের সদস্যদের উপস্থিতিতে উক্ত ক্যাম্পটি সুন্দর ও সাফল্যের মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।।।

শেয়ার করুন:

আরও খবর

Sponsered content

দুর্গাপুরে ঈদবাজারে শেষ মুহূর্তের বেচা-কেনায় ব্যস্ত ক্রেতা ও বিক্রেতারা।

ঈদগাঁওতে শুরু ড্রাইভিং ও ফ্রিল্যান্সিং কার্যক্রম

রাণীনগরে ধান ব্যবসায়ীকে মারপিট করে প্রায় ৯লক্ষ টাকা ছিন্তাইয়ের অভিযোগ

নেত্রকোনার ৫ সংসদীয় আসনে ১৩ জনের মনোনয়ন বাতিল রিপন কান্তি গুণ, নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি;

আন্ধারীঝাড়ে ধারের টাকা তুলতে হালখাতা এস এম মনিরুজ্জামান, স্ট্যাফ রিপোর্টারঃ ধারের টাকা তুলতে ঋণগ্রহীতাদের কাছে হালখাতার চিঠি দিয়েছেন কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার আন্ধারীঝাড় এম এ এম উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আব্দুল আউয়াল। এরইমধ্যে সবার কাছে হালখাতার চিঠি পৌঁছে দিয়েছেন তিনি। আগামী ১২ জানুয়ারি হালখাতা অনুষ্ঠিত হবে। হালখাতার একটা চিঠি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ইংরেজি নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়ে আব্দুল আউয়াল চিঠিতে লিখেছেন, ‘আপনাদের টাকা হাওলাত দিয়ে আমি আনন্দিত। আগামী ১২ জানুয়ারি হালখাতার আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত হালখাতায় আপনি উপস্থিত হয়ে ঋণ পরিশোধ করে ঋণমুক্ত থাকুন।’ ধারের টাকা পরিশোধ করতে ৩৫ জন ঋণগ্রহীতাকে চিঠি দিয়েছেন ওই শিক্ষক। এসব মানুষের মধ্যে বেশিরভাগই তার বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজনসহ কাছের মানুষ। হালখাতার চিঠি পাওয়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বলেন, ‘হালখাতার চিঠি পেয়ে প্রথমে হতভম্ব হলেও পরে বুঝতে পেরেছি ধারের টাকা ফেরত দিতে দেরি হয়েছে। আশা করছি হালখাতায় তার টাকা পরিশোধ করে দেবো।’ হালখাতার আয়োজক শিক্ষক আব্দুল আউয়াল বলেন, ‘যারা টাকা ধার নিয়েছেন তাদের সঙ্গে প্রতিদিন ওঠাবসা রয়েছে। লজ্জায় তাদের কাছে টাকা ফেরতও চাইতে পারি না। তারাও দেওয়ার নাম করে না। পরে তাদের টাকা ফেরত দেওয়ার মাধ্যম হিসেবে হালখাতার ধারণা মাথায় আসে। এতে তাদের সঙ্গে মনোমালিন্যও হলো না, আবার টাকা ওঠার সম্ভাবনা শতভাগ রয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, এ পর্যন্ত ৩৫ জনকে চিঠি দিয়েছি। এদের মধ্যে কেউ তিন বছর আগে টাকা নিয়েছেন। সবমিলিয়ে আমার তিন লাখ টাকার মতো ধার দেওয়া আছে। চিঠি পেয়ে অনেকে টাকা পরিশোধ করতে উদ্যোগ নিয়েছেন।

পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসন এর বিশেষ অনুদান প্রদান।